UncategorizedKayifamily EpisodeKayifamily Series

সালাহউদ্দিন আইয়ুবী এপিসোড-৬ বাংলায় দেখুন

KayiFamily UK SHOW Selahaddin Eyyubi 6 in Bangla with 1080

আসসালামু আলাইকুম সুপ্রিয় দর্শক আশাকরি গত পর্বটি আপনাদের কাছে আকর্ষণীয় লেগেছে। গত পর্বের মত আগামী পর্বেও বেশ কিছু চমক আসতেছে। আজ আমরা কথা বলবো গত পর্বের বেশ কিছু বিষয় এবং আগামী পর্বে কি হতে চলেছে সেটা নিয়ে। চলুন তাহলে মূল আলোচনা শুরু করি।

সালাহউদ্দিন আইয়ুবীর এই পর্বের শুরুতে আমির নূর-উল-দীন জাঙ্গি তার প্রিয় পুত্র ইউসুফের নাম উল্লেখ করে একটি চিঠি লিখতে মগ্ন থাকেন। তিনি যখন সাবধানতার সাথে তার চিন্তাগুলি লিখছেন, তখন একজন চাকর তড়িঘড়ি করে তার কাছে আসে এবং বেদনাদায়ক সংবাদ তাকে দেয় ।সংবাদটি হলো এই যে তার স্ত্রী অসহনীয় ব্যথায় ভুগছে।

স্ত্রীর পাশে ছুটে যাওয়ার সময় আমির নূর-উল-দীনের মুখে দুশ্চিন্তার ছাপ দেখা যায়।দৃশ্যের আকস্মিক পরিবর্তনে, আমরা আইয়ুব বে এবং তার অনুগত ভাই শের কোহকে একদল সৈন্য নিয়ে মরিয়া হয়ে পালাতে দেখি। আইয়ুব বের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী বেদনায় কান্নাকাটি করতে থাকে সাথে সাথে ভয় পেয়ে যায়।

আইয়ুব বে তার হাত জড়িয়ে ধরেন, তার কন্ঠ আশ্বাসে ভরে যায়, তাকে জাঙ্গির দেশে তাদের আসন্ন আগমনের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়, যেখানে আমির নূর-উল-দীন জাঙ্গি তার সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবেন। তাদের গন্তব্যে পৌঁছানোর ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও, পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে থাকে এবং তারা তাদের বাচ্চাদের সুরক্ষার দায়িত্ব শের কোহের সক্ষম কাঁধে রেখে একটি অস্থায়ী তাঁবু স্থাপন করতে বাধ্য হয়।


১১৬৯ সালের ২৩ মার্চ। সালাহুদ্দিন আইউবি গভর্নর ও সেনাপ্রধান হয়ে মিসর আগমন করেন। ফাতেমি খিলাফতের কেন্দ্রীয় খলীফা তাকে এ পদে নিয়োগ দিয়ে বাগদাদ থেকে প্রেরণ করেন। তার (দ্বাদশ শতাব্দীর) আগে থেকেই ইউরোপ, ফ্রান্স ও জার্মানি ইসলামিক রাষ্ট্র ভাঙ্গার জন্য ক্রুশ ছুঁয়ে শপথ করে, ইসলামের নাম নিশানা মুছে দিয়ে বিশ্বজুড়ে ক্রুশের রাজত্ব প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে শুরু করে নানা চক্রান্ত। সেইসঙ্গে তারা চালায় সশস্র অভিযান।

মুসলিমদের থেকে ছিনিয়ে নিয়ে দখল করে রাখে ইসলামের মহান স্মৃতি চিহ্ন প্রথম কিবলা বায়তুল মুকাদ্দাস।
এদিকে, আমির নূর-উল-দীন জাঙ্গি, উদ্বেগে নিমজ্জিত, নিজেকে অন্য একটি দৃশ্যে পরিচয় করিয়ে দেয়, যেখানে তার স্ত্রী শ্রমের মধ্যে রয়েছে। দুঃখ ও আতঙ্ক তার হৃদয়কে গ্রাস করে, কিন্তু ঘরে প্রবেশ করার সাথে সাথে তিনি ধাত্রীর কাছ থেকে বিস্ময়কর খবর পান – আইয়ুব বের স্ত্রী একটি সুস্থ সন্তানের জন্ম দিয়েছেন।

এবং আমির নূর-উল-দীন জাঙ্গি তার স্ত্রীর পাশে থাকার জন্য তাড়াহুড়ো করেন, তখন আরেকটি বিধ্বংসী আঘাতের শিকার হন – তার প্রিয় স্ত্রী সন্তান প্রসবের সময় ইন্তেকাল করেছেন।এই হৃদয়বেদনার মাঝেও আমির নূর-উল-দীন জাঙ্গির নির্দেশে পবিত্র যুদ্ধের জন্য সদস্যদের প্রস্তুত করে উমর মোল্লা আফান্দির সঙ্গে পরিচয় হয়। আমির নূর-উল-দীন জাঙ্গি, তার চোখ দুঃখে ঝলমল করে যখন আসে,

তখন তিনি সমবেত দলের সাথে তার সন্তানের মৃত্যুর হৃদয়বিদারক সংবাদ ভাগ করে নেন। উমর মোল্লা আফান্দি সহানুভূতি ও শ্রদ্ধায় পরিপূর্ণ কণ্ঠে আমির নূর-উল-দীন জাঙ্গিকে নিপীড়িতদের ন্যায়বিচারের জন্য আজীবন অনুসন্ধান এবং আল্লাহর জন্য জিহাদে লিপ্ত হওয়ার অবিচল অঙ্গীকারের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।


তিনি আমির নূর-উল-দীন জাঙ্গির হৃদয়ে জ্বলন্ত মহৎ স্বপ্নের কথা বর্ণনা করেন – খ্রিস্টান সম্প্রদায়কে ধ্বংস করা ও মুসলমানদের রক্ষা করা এবং কুদসকে জয় করার পরে মুসলিম রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা। অসম্পূর্ণ আকাঙ্ক্ষার ভার আমির নূর-উল-দীন জাঙ্গির হৃদয়ের উপর নির্ভর করে, কিন্তু উমর মোল্লা আফান্দির কথাগুলি তার আত্মায় নতুন আশার সঞ্চার করে, তাকে আশ্বস্ত করে যে ভাগ্য যদি অন্যকিছু বেছে নেয় তবে তার ছেলে এই মহৎ লক্ষ্যগুলি উপলব্ধি করতে উত্থিত হবে।

এর কিছুদিন আগেই গভর্নর আইয়ুব বা’র ভাই শের কোহের আগমন শোকাহত পরিবেশকে বিঘ্নিত করে , আমির নূর-উল-দীন জাঙ্গির সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়ে শের কোহ তার পরিচয় এবং তাদের পরিস্থিতির গুরুত্ব প্রকাশ করে – আমির বাহরোজ এবং তার শক্তিশালী সৈন্যরা নিরলসভাবে তাদের কাজ করছে। আইয়ুব বে, তার স্ত্রী ফাতিমাকে সাথে নিয়ে দ্রুত তাদের সামনে আনা হয়।

এক মুহুর্তের বিশ্রামের মধ্যে ফাতিমা তার অভিজ্ঞতার একটি উজ্জ্বল স্বপ্ন ভাগ করে নেন – ভবিষ্যতের এক ঝলক যেখানে তাদের ছেলে ইউসুফ ইসলামের জ্ঞানী এবং ধর্মপ্রাণ অনুসারী হয়ে ওঠে। তারা জানতো না যে তারা আশার এই ক্ষণস্থায়ী মুহুর্তে স্নান করার সাথে সাথে বিপদ আরও নিকটবর্তী হতে চলেছে। আমির বাহরোজ এবং তার সৈন্যরা তাদের অনুসন্ধানে ঘটনাস্থলে পৌঁছায়, আইয়ুব বে এবং তার স্ত্রীকে ধরার জন্য প্রস্তুত হয়, তাদের হৃদয়ে মুহূর্তের জন্য উত্তেজিত সান্ত্বনার ঝলকানি কেড়ে নেয়।

সালাহুদ্দীন আইয়ুবি মিশরের গভর্নর হওয়ার পরই সর্বপ্রথম সেখান থেকে খৃষ্টানদের চক্রান্তে পা দেয়া আমির উজিরদের সুকৌশলে সরকারী দায়িত্ব থেকে দূরে সরিয়ে দেন। এজন্য তাকে মারার জন্য ক্রুসেডারদের দালালরা অনেক ফন্দি আটার পরও তারা ব্যর্থ হয়। দালালরা অনেক সুন্দরী মেয়ে ব্যবহার করেও পাথরের মত সালাহুদ্দীনকে গলাতে পারেনি। যেখানে অন্যান্য আমিররা সানন্দেই তাদের গ্রহণ করত।

দালালরা সালাহুদ্দীনকে গলাতে না পেরে তাকে ক্ষমতা থেকে নামিয়ে নিজেরা ক্ষমতায় বসার জন্য মিশরের সেনাবাহিনীর মধ্যে থাকা সুদানি সেনাদের মধ্যে বিদ্রোহ করার চেষ্টা করে এই বলে যে তোমরা সুদানি তারা মিশরি। সুদানের বর্ডার মিশরের কাছে থাকাতে বিদ্রোহের পর সেখান থেকে আক্রমণ করাও সহজ ছিল। কিন্তু সালাহুদ্দীন আইয়ুবি তার চৌকস গোয়েন্দা প্রধান আলি বিন সুফিয়ান কে দিয়ে সব তথ্য আগেই পেয়ে যান ।

আর খুবই কৌশলে তাদের বিদ্রোহ দমন করেন। এদিকে সেনা বিদ্রোহ করিয়ে দালালরা সম্রাট ফ্রাঙ্ককে আক্রমণ করার আগমনও জানায়। কিন্তু সালাহুদ্দীন আইউবি আগেই বিদ্রোহ দমন করেন, আর যখন পরে ফ্রাঙ্ক এর সেনাবাহিনী আসে তারা পুরোপুরিভাবে সালাহুদ্দীনের কাছে পরাজিত হয়


আগামী পর্ব খুবই আকর্ষণীয় হতে চলেছে তা এই রিভিউ থেকেই বোঝা যাচ্ছে। তবে এটা বলতে হবে সালাউদ্দিন আইয়ুবী সিরিজ এর ৩ টি ভলিউম সবাই খুব মুগ্ধ করেছে। তো এখানে কি হবে? এত গোপনীয়তা কি প্রকাশ পাবে?? তাহলে তা বুঝাই যাচ্ছে আগামী পর্ব টা খুবই দারুণ হতে চলেছে সম্পূর্ণ পরবর্তী এখনই দেখুন। read more

Watch English Subtitles

সালাহউদ্দিন আইয়ুবী এপিসোড-৬ বাংলায় দেখুন

Video Server-1

video server- 2 WITH ads

Watch more

Related Articles

8 Comments

  1. এখন সিরিজ দেখতে অনেক কষ্ট হয়, অনেক খুজাখুজি পরও যদি পাই, তাহলে খুব স্লো ভাবে দেখতে হয়ে মানে ১০ সেকেন্ড দেখতে পারলে ১ মিনিট অপেক্ষা করতে হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Check Also
Close
Back to top button